1. admin@dailybanglavoice24.com : admin :
রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ১১:২৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রাজশাহীতে বাকি টাকা চাওয়ায় কর্মচারীকে কুপিয়ে হত্যা, ২ আসামির মৃত্যুদন্ড,, ট্রাফিক পুলিশ সদস্য আব্দুস সামাদ ৫৭ বছর বয়সে এসএসসি পাশ করে অবাক করে দিলেন দেশবাসীকে,, গণপরিবহনে চাঁদাবাজির সময় RAB-5 এর অভিযানে আটক ২১,, দৈনিক বাংলা ভয়েস 24.com এর স্টাফ রিপোর্টার মুনজুর দীর্ঘদিন যাবত অসুস্থ,, পুঠিয়ায় মাদক বিক্রির প্রতিবাদ করায় মাদক সম্রাট মনিরের হাতে যুবক কে জখম করার অভিযোগ দূর্গাপুরে আসামী প্রভাবশালী হওয়ায় ভিকটিম কুলসুম ন্যায় বিচার হতে বঞ্চিত। দূর্গাপুরে আসামী প্রভাবশালী হওয়ায় ভুক্ত ভুগীর মামলা খারিজ রাজশাহীর পুঠিয়ায় বাস ও মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত (২ ) “ভিলেজ ফুড” গ্রামের খাঁটি পন্য নিয়ে গ্রাহকদের আস্থার প্রতিক হয়ে উঠেছে বাংলা ভয়েস দূর্গাপুর উপজেলা প্রতিনিধি নরেশ কুমার কে অব্যহতি

“শক্ত কর্মসূচির কথা ভাবছে বিএনপি”

মো: মন্জুর রহমান,স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৭ জুলাই, ২০২৩
  • ১৩০ বার পঠিত

সরকারের পদত্যাগ ও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে গত এক বছর ধরে সভা-সমাবেশ, বিক্ষোভ মিছিল, পদযাত্রাসহ নানা কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি। দলটি এখন আবারো একই ধরনের কর্মসূচিতে যেতে চায় না। জানা গেছে, এক দফা ঘোষণার সাথে সাথে যে কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে, তা অপেক্ষাকৃত কঠোর হবে। এ ক্ষেত্রে ঘেরাওসহ একাধিক শক্ত কর্মসূচির কথা ভাবা হচ্ছে।

গত দুই দিন বিএনপি যুগপৎ আন্দোলনের শরিক জাতীয়তাবাদী সমমনা জোট ও ১২ দলীয় জোটের সাথে বৈঠক করেছে। এসব বৈঠকে কী ধরনের কর্মসূচি দেয়া যায় তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। জানা গেছে, কেউ কেউ আবারো সভা-সমাবেশের মতো সাধারণ কর্মসূচির কথা বললে তা নাকচ হয়ে যায়। বিএনপির তরফ থেকে বলা হয়েছে, একই কর্মসূচিতে তারা আর যেতে চায় না। শক্ত কর্মসূচি দিতে হবে।
জানা গেছে, ১৫ জুলাইয়ের মধ্যেই সরকারের পদত্যাগের এক দফা দাবি ঘোষণা করতে চায় বিএনপিসহ সরকারবিরোধী দলগুলো। এক দফার এই ঘোষণা এক মঞ্চ থেকে আসতে পারে অথবা যুগপৎভাবেও ঘোষণা করা হতে পারে।

১২ দলীয় জোটের নেতা এহসানুল হুদা গতকাল বিএনপির সাথে বৈঠক শেষে নয়া দিগন্তকে বলেন, আমরা একই ধরনের কর্মসূচির কথা আর চিন্তা করছি না। কর্মসূচির ধরনে অবশ্যই পরিবর্তন আসবে।

এক দফার আন্দোলনের দিনক্ষণের বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমরা যুগপৎ আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করছি। সব দলের সাথে আলোচনার ভিত্তিতে অতি শিগগিরই চূড়ান্ত কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। তিনি বলেন, এবারের আন্দোলন হবে চূড়ান্ত পর্যায়ের আন্দোলন। এই আন্দোলন দেশের সব মানুষ সম্পৃক্ত হবে এবং জনগণ তার অধিকার আদায় করে নেবে।
এ দিকে চূড়ান্ত আন্দোলনে সফল হতে সাংগঠনিক সব শক্তিকে কাজে লাগাতে চায় বিএনপি। এর অংশ হিসেবে সবার কাছে বার্তা দেয়া হয়েছে যে, নিষ্ক্রিয় থাকার দিন শেষ, রাজপথে সক্রিয় হতে হবে সবাইকে। এক দফার আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণার আগে সব অঙ্গ-সহযোগী ও সমর্থিত সংগঠনের ব্যানারে কর্মসূচি দিয়ে সবাইকে মাঠে নামানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

বিএনপি সূত্র মতে, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে মোকাবেলা করতে তিনটি বিষয় প্রাধান্য পাচ্ছে বিএনপিতে। এগুলো হচ্ছে- মাঠের রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ, মিত্রদের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়ন এবং কূটনৈতিক তৎপরতা জোরদার। তবে আন্তর্জাতিক মহলের চাপ এবং মিত্রদের সমর্থনের চেয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে রাজপথে নিজস্ব শক্তি প্রদর্শনের বিষয়টি। এ জন্য একটি নেতা-কর্মীও যাতে নিষ্ক্রিয় না থাকে সেই দিকটি বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে।

জানা গেছে, সরকার পতনের একদফা আন্দোলনে দলের অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলোর সাংগঠনিক শক্তিকে কাজে লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। এর অংশ হিসেবে তিনটি সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে ছয়টি বড় শহরে ‘তারুণ্যের সমাবেশ’ হচ্ছে। এ ছাড়া অপর পাঁচটি সংগঠনের উদ্যোগে ছয় জেলায় ‘মেহনতি মানুষের পদযাত্রা’ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এসব কর্মসূচির মধ্য দিয়ে সংগঠনগুলোর সাংগঠনিক সক্ষমতা যাচাই করছেন বিএনপির নীতি-নির্ধারকরা। যাতে সাংগঠনিক কোনো দুর্বলতা থাকলে তা কাটিয়ে চূড়ান্ত আন্দোলনে অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

আন্দোলন ঘিরে সাংগঠনিক তৎপরতার বিষয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী ও শ্রমিক নেতা শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস বলেন, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদলের যৌথ উদ্যোগে তারুণ্যের সমাবেশের পাশাপাশি শ্রমিক দল, কৃষক দল, তাঁতী দল, মৎস্যজীবী দল ও জাসাসের যৌথ উদ্যোগে ‘দেশ বাঁচাতে মেহনতি মানুষের পদযাত্রা’ শীর্ষক নতুন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে, যা রাজনীতিতে নতুন মাত্রা যুক্ত করবে। নোয়াখালীতে ওই পাঁচ সংগঠন যৌথভাবে পদযাত্রা কর্মসূচি পালনের মাধ্যমে দেশব্যাপী শ্রমজীবী মানুষের নবজাগরণ ঘটাবে।

বিএনপির ১১টি অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের মধ্যে আন্দোলন-সংগ্রামে মূল চালিকাশক্তি হিসেবে পরিচিত জাতীয়তাবাদী যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদল। সরকারবিরোধী আন্দোলনে অতীতে এই তিনটি সংগঠনই রাজপথে জোরালো ভূমিকা পালন করেছে। তাই আগামীতে সরকার পতনের একদফা আন্দোলনেও দলের প্রধান তিন এই অঙ্গ-সহযোগী সংগঠন অর্থাৎ তারুণ্যের শক্তিকে কাজে লাগাতে চায় বিএনপির হাইকমান্ড। তাই সারা দেশে আয়োজন করছে অঞ্চলভিত্তিক ‘তারুণ্যের সমাবেশ’। গত ১৪ জুন চট্টগ্রাম দিয়ে বিএনপির এ ‘তারুণ্যের সমাবেশ’ শুরু হয়। পরবর্তী সময়ে ১৯ জুন বগুড়া এবং ২৪ জুন বরিশালে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। আগামী ৯ জুলাই সিলেট, ১৭ জুলাই খুলনা এবং ২২ জুলাই ঢাকায় তারুণ্যের সমাবেশের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এ কর্মসূচি। এই কর্মসূচির মধ্য দিয়ে তরুণ সমাজকে উজ্জীবিত করছে আন্দোলনরত বিএনপি।

দলটির নীতিনির্ধারকরা মনে করছেন, এরই মধ্যে যেসব সমাবেশ হয়েছে তাতে দেশের তরুণ-যুবকদের স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া মিলেছে। বাকি সমাবেশগুলোতেও তরুণ জনগোষ্ঠীর বিরাট অংশ সম্পৃক্ত হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা জানাবে বলে আশা তাদের। সরকার পতনের আন্দোলনে তরুণদের মাঠে নামিয়ে রাজনীতির মোড় ঘুরিয়ে দিতে চান তারা।

তারুণ্যের এই সমাবেশ সফলে যুবদল সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মিল্টন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এস এম জিলানী ও সাধারণ সম্পাদক রাজীব আহসান এবং ছাত্রদলের সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ ও সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল সারা দেশ ছুটে বেড়াচ্ছেন। সিলেটে তারুণ্যের সমাবেশ সফলে সেখানে গেছেন যুবদল সভাপতি। জেলা বিএনপি আয়োজিত প্রস্তুতি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন। সেখানে সুলতান সালাউদ্দিন টুকু বলেন, তারুণ্যের সমাবেশ তরুণদের মধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। আজকে মানুষের ভোটাধিকার নেই। প্রায় চার কোটি নতুন ভোটার হয়েছে। তারা কেউ ভোট দিতে পারেননি। মানুষের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে হবে। জনগণের দাবি-দাওয়া নিয়ে মাঠে নেমেছি। দাবি আদায় না করা পর্যন্ত মাঠে থাকব।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর