1. admin@dailybanglavoice24.com : admin :
রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ১১:০৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রাজশাহীতে বাকি টাকা চাওয়ায় কর্মচারীকে কুপিয়ে হত্যা, ২ আসামির মৃত্যুদন্ড,, ট্রাফিক পুলিশ সদস্য আব্দুস সামাদ ৫৭ বছর বয়সে এসএসসি পাশ করে অবাক করে দিলেন দেশবাসীকে,, গণপরিবহনে চাঁদাবাজির সময় RAB-5 এর অভিযানে আটক ২১,, দৈনিক বাংলা ভয়েস 24.com এর স্টাফ রিপোর্টার মুনজুর দীর্ঘদিন যাবত অসুস্থ,, পুঠিয়ায় মাদক বিক্রির প্রতিবাদ করায় মাদক সম্রাট মনিরের হাতে যুবক কে জখম করার অভিযোগ দূর্গাপুরে আসামী প্রভাবশালী হওয়ায় ভিকটিম কুলসুম ন্যায় বিচার হতে বঞ্চিত। দূর্গাপুরে আসামী প্রভাবশালী হওয়ায় ভুক্ত ভুগীর মামলা খারিজ রাজশাহীর পুঠিয়ায় বাস ও মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত (২ ) “ভিলেজ ফুড” গ্রামের খাঁটি পন্য নিয়ে গ্রাহকদের আস্থার প্রতিক হয়ে উঠেছে বাংলা ভয়েস দূর্গাপুর উপজেলা প্রতিনিধি নরেশ কুমার কে অব্যহতি

মিঠুর এই হিংস্রতার দায় কার ? মাস্টার মাইন্ড বড় ভাইয়ের, নাকি প্রশাসনের ?

দৈনিক বাংলা ভয়েস ২৪ ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১০ জুলাই, ২০২৩
  • ৯১২ বার পঠিত

রাজশাহীর পুঠিয়ায় হাট ইজারাদার নাজমুল হক সুমনকে (৩৫) ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানোর অভিযোগে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা, বহুল আলোচিত শ্রমিক নেতা নুরুল হত্যা মামলার আসামী, সন্ত্রাসী,মাদক সম্রাট সাকিবুর রহমান মিঠু আটক, মিঠু আটকের পরে তার দ্বারা নির্যাতিত লোকজন মুখ খুলতে শুরু করেছে।
তবে প্রশ্ন থেকে যায় কে এই মিঠু? কিভাবে? কার? ছত্রছায়ায় এক জন টোকায় থেকে কিলার ও হিংস্র মানব হয়ে উঠে।

ঝলমলিয়া এলাকার ত্রাস নামে পরিচিত সাকিবুর রহমান মিঠু ইস্কুলের গন্ডি না পেরেলেও হয়ে যান রাতারাতি টোকায় থেকে নেতা বনে,খোজ নিয়ে জানা যায় রাজশাহী জেলা আওয়ামিলিগ এর সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আহসানুল হক মাসুদ নিজ স্বার্থের কারনে এই মিঠু টোকায় কে পুঠিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বানায়। টোকায় মিঠু থেকে নেতা হয়ে হিংস্রতা বেড়ে যায় মিঠুর। তার নাম শুনলে মানুষের মাঝে আতঙ্ক দেখা দেয়। মোটর শ্রমিক নেতা নুরুল ইসলাম হত্যাসহ বেশ কয়েকটি মামলার আসামী মিঠু । উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মিঠু এলাকার এমপির সমর্থক ও রাজশাহী জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, নুরুল হত্যা মামলার প্রধান আসামি আহসানুল হক মাসুদ এর ডান হাত হিসাবে এলাকায় পরিচিত । মানুষ কোপানো ও হত্যা করতে হাত কাঁপে না মিঠুর। বহুল আলোচিত শ্রমিক নেতা নুরুল কে হত্যা করে, ছাত্রলীগ নেতা হওয়ায় ও মাথার উপর গডফাডার মাস্টার মাইন্ড বড় ভাই মাসুদ থাকায় দলীয় ক্ষমতার জোরে হত্যা মামলার এজাহার ভুক্ত আসামি হয়েও প্রশাসনের নাকের ডগায় ঘুরায় দিন দিন আরো বেপরোয়া হয় মিঠু। তার অপরাধের কোন প্রতিবাদ করতে সাহস পায় না স্থানীয় লোকজন। মিঠুর সকল অপকর্মের বিচার চেয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফুঁসে উঠেছে লোকজন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় লোকজন বলেন শ্রমিক নেতা নুরুল কে হত্যা করার পরেও মিঠু ও তার গডফাদার মাসুদ এর এখন পর্যন্ত কোন কিছু না হওয়াতে তার সাহস বেড়ে যায়,যদি হত্যা মামলায় বিচার ধীর গতি না হয়ে বিচার হতো, তাহলে অাজ এমন নৃশংস ঘটনার পুনঃবৃত হতো না। গডফাদার এর ইশারায় সে অপরাধ পরিচালনা করে , ঝলমলিয়া এলাকায় চাঁদাবাজি, ছিনতাই আর মাদক ব্যবসা চলে তার। এলাকাবাসীর একটি প্রশ্ন মিঠুর এই হিংস্রতার দায় কার? ছত্রছায়া গডফাদারের নাকি প্রশাসনের?।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর